সকাল ৭:৩৭,   বুধবার,   ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং,   ৯ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ,   ৪ঠা জমাদিউস-সানি, ১৪৩৯ হিজরী

গাজীপুরে ডাকাতির খবর লেখায় মামলার আসামি সাংবাদিক

গাজীপুর প্রতিনিধি::
গাজীপুরের টঙ্গী থানার ওসি ফিরোজ তালুকদারের অনুরোধ উপেক্ষা করে ডাকাতির খবর লেখায় রাজনৈতিক মামলার আসামী করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন দৈনিক নয়া দিগন্তের টঙ্গী সংবাদদাতা শেখ আজিজুল হক। এঘটনায় বিভিন্ন সাংবাদিক সংগঠন প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছে।

গত ৩ ফেব্রুয়ারি গভীর রাতে টঙ্গী বাজারের ব্যবসায়ী ফিরোজ খান ও তার ভাই দুবাই প্রবাসী ফারুক খানের বাড়িতে ডাকাতি হয়। ডাকাত দল গ্রিল কেটে বাড়িতে ঢুকে পরিবারের সদস্যদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি ও মারধরের পর হাত-পা বেঁধে ১০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, দুই লাখ টাকা, একটি ল্যাপটপ ও দুটি কম্বল লুট করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ মামলা নেয়নি। পরে দৈনিক নয়া দিগন্ত পত্রিকায় ‘১০ ভরি স্বর্ণ ২ লাখ টাকা লুট, টঙ্গীতে ব্যবসায়ীর বাড়িতে ডাকাতি’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ হয়।

আজিজুল হক বলেন, ডাকাতির ঘটনার পর সংবাদ প্রকাশ না করতে ওসি ফিরোজ তালুকদার আমাকেসহ স্থানীয় সাংবাদিকদের একাধিকবার অনুরোধ করেছেন। কয়েকজনকে বিভিন্নভাবে ম্যানেজও করেন তিনি। কিন্তু ঘটনার পরদিন শুধুমাত্র দৈনিক নয়া দিগন্তে সংবাদ প্রকাশ হলে ওসি ফিরোজ তালুকদার আমার প্রতি চরম ক্ষুব্ধ হন এবং দেখে নিবেন বলে হুমকি দেন। পরে বিষয়টি জেনে স্থানীয় কয়েকজন সাংবাদিক আমাকে সতর্ক থাকারও পরামর্শ দেন।

তিনি আরও বলেন, ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষের চাপ আসে এবং বদলি হয়ে যাওয়ার সম্ভবনা থাকে জানিয়ে ওসি যোগদানের শুরু থেকেই সাংবাদিকদের ডাকাতির সংবাদ না করতে অনুরোধ করেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত ৬ ফেব্রুয়ারি বিএনপির ১৬৬ নেতাকর্মীর নামে টঙ্গী মডেল থানায় বিশেষ ক্ষমতা ও বিষ্ফোরক দ্রব্য আইনে একটি মামলা (নং-২০) হয়। ওই মামলায় বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও সাবেক সাংসদ হাসান উদ্দিন সরকারসহ কয়েকজনকে গত ৭ ফেব্রুয়ারি বুধবার আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। পরে বৃহস্পতিবার রাজনৈতিক নেতারা মামলার এজাহারে ১১৬ নম্বরে সাংবাদিক আজিজুল হকের নাম দেখে বিষ্ময় প্রকাশ করেন।

এ বিষয়ে টঙ্গী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফিরোজ তালুকদার বলেন, গাজীপুর ও টঙ্গীর ১৬৬ জন নেতাকর্মীর নামে মামলা হয়েছে। সবাই তো আর ডাকাতির সংবাদ করেনি। আজিজুল বিএনপি নেতা হাসান উদ্দিন সরকারের বেতনভুক্ত পিএ-২। বেতন নিলে তো মামলা হতেই পারে। পদ থাকলে মামলা হবে না? তার নামে মামলা হয়েছে আজ দুপুরে জেনেছি।

তিনি দাবি করেন, সকল রাজনৈতিক সভা, সমাবেশে হাসান উদ্দিন সরকারের সঙ্গে থাকেন আজিজুল। হাসান উদ্দিন সরকারের অর্থনৈতিক বিষয়গুলো দেখেন তিনি। রাজনীতির বাহিরে আসলেই আজিজুল সাংবাদিক! এখন শাক দিয়ে মাছ ঢেকে কি হবে বলেন?

এদিকে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) মহাসচিব শওকত মাহমুদ ও এম আব্দুল্লাহ এঘটনার তীব্র নিন্দা এবং মামলা থেকে সাংবাদিক আজিজুল হকের নাম প্রত্যাহারের দাবী জানিয়েছেন। এছাড়া টঙ্গী প্রেসক্লাবের সভাপতি মোঃ মেরাজ উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক এম.এ কাশেম রানা এবং গাজীপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মোঃ দেলোয়ার হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ হেদায়েত উল্লাসহ জেলার সংবাদকর্মীরা নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

সংবাদটি আপনার ভালো লাগলে লাইক, শেয়ার ‍দিন-